1. apiislam52@gmail.com : Textile Mirror :
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:৪৩ পূর্বাহ্ন

সিনথেটিক ডাইয়ের উৎপত্তি যেভাবে

  • আপডেট : মঙ্গলবার, ১৬ মার্চ, ২০২১
  • ৪০৮ বার পড়া হয়েছে

রাকিবুল আরাফাত রোজঃ
১৮৩৮ সালের ১২ মার্চ ইংল্যান্ডের লন্ডনে জন্ম নেয় উইলিয়াম হেনরি পেরকিন নামের এক শিশু। শিশুটি যখন বড় হতে থাকে তখন থেকেই তার কৌতূহল ছিলো বিজ্ঞান, ফটোগ্রাফি এবং ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে। আস্তে আস্তে শিশু পেরকিন যুবক হয়ে উঠে আর বিজ্ঞানের প্রতি তার আকর্ষণও বাড়তে থাকে। তার প্রয়াত দাদার একটি গবেষণাগার ছিলো যা রসায়নের প্রতি যুবক পেরকিনের আগ্রহকে উস্কে দিয়েছিলো।
মাত্র ১৫ বছর বয়সে রয়্যাল কলেজ অফ কেমিস্ট্রিতে যোগ দিতে যান এবং ১৮৫৩ সালে প্রবেশ করতে সফল হন। সে সময় রয়্যাল কলেজ অফ কেমিস্ট্রিটির নেতৃত্বে ছিলেন বিশিষ্ট জার্মান রসায়নবিদ অগস্ট উইলহেলম হফম্যান। পারকিনের বৈজ্ঞানিক উদ্ভাবনগুলো হফম্যানের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল এবং দুই বছরের মধ্যে তিনি হফম্যানের কনিষ্ঠ সহকারী হয়েছিলেন। ঐ সময়টায় কুইনাইন ছিল ম্যালেরিয়ার একমাত্র কার্যকর ঔষধ, যা এক ধরনের বিশেষ গাছের ছাল থেকে উদ্ভূত হয়। ১৮৫৬ সালের মধ্যে ড্রাগের চাহিদা সরবরাহকে ছাড়িয়ে গিয়েছিল। তখন হফম্যান কুইনাইনের সিনথেটিক বিকল্পের সম্পর্কে কিছু উত্তেজক মন্তব্য পারকিনকে আগ্রহী করে তুলে।
১৮৫৬ সালে অবকাশের সময় পারকিন তার পরিবারের বাড়ির শীর্ষ তলায় ল্যাবরেটরিতে সময় কাটাতেন। তিনি অ্যানিলিন থেকে কুইনাইন তৈরি করার চেষ্টা করছিলেন। অ্যানিলিন একটি সস্তা ও সহজলভ্য কয়লার বর্জ্য পণ্য। তবে এ যাত্রায় অনেক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও তিনি সফল হন নি। তবে তার পরিবর্তে তিনি নতুন কিছু আবিষ্কার করে ফেললেন।

পারকিন পরীক্ষামূলক প্রক্রিয়ার বিভিন্ন পর্যায়ে অ্যানিলিনে পটাসিয়াম ডাইক্রোমেট এবং অ্যালকোহল অন্তর্ভুক্ত করে তিনি একটি বেগুনি রঙ তৈরি করেছিলেন। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন তার বেগুনি দ্রবণটি ফেব্রিক রঙ করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। আর এটিই বিশ্বের প্রথম সিনথেটিক ডাই বা রং।
পারকিন মূলত তার রঞ্জকটি টাইরিয়ান বেগুনি নাম রেখেছিলেন। তবে পরে এটি সাধারণত মাউভ হিসাবে পরিচিত হয়। ১৮৫৭ সালে বিশ্বের প্রথম সিনথেটিকভাবে ডাই পদার্থের উৎপাদন শুরু হয়।

ছড়িয়ে দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ Textilemirrorbd.com
Built with ❤ by Minhaz